মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৩:০১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
আনোয়ারা উপজেলায় পিস প্রকল্পের উগ্রবাদ প্রতিহতকরণে নাগরিকদের সচেতনতা বৃদ্ধিকরণ” বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত পুলিশ কমিশনারের সাথে ডা.শাহাদাত হোসেনের সাক্ষাৎ মৎস্যজীবী লীগের স্বীকৃতি প্রদানের ২য় বর্ষপূর্তির আলোচনা সভা চসিক মেয়রের সাথে সিএমপি কমিশনারের সৌজন্য সাক্ষাত খালেদা জিয়ার অসুস্থতার জন্য বিএনপিই দায়ী ওমিক্রনের কারণে এইচএসসি পরীক্ষা বন্ধ হবে না-দীপু মনি বাংলাদেশ এখন বিনিয়োগ বান্ধব দেশ: আইনমন্ত্রী খালেদা জিয়ার মেডিক্যাল রিপোর্ট বিদেশে পাঠানো হয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী মিডিয়া অঙ্গনে আলোচনার কেন্দ্র বিন্দু বিটিভি চট্টগ্রামের ধারাবাহিক ‘জলতরঙ্গ’ চট্টগ্রামে গণপরিবহনে হাফ পাসের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন

সাম্প্রদায়িক সহিংসতার বিচার দাবি টিআইবির

সাম্প্রতিক সাম্প্রদায়িক সহিংসতা বিচ্ছিন্ন কোন ঘটনা নয়। তাই রাজনৈতিক দোষারোপের চিরাচরিত সংস্কৃতি বাদ দিয়ে অবিলম্বে সব ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।


মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এমন দাবি জানিয়েছে সংস্থাটি।

এতে উল্লেখ করা হয়েছে, দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে কুমিল্লাসহ দেশের অন্তত ১৫টি জেলায় শতাধিক সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় অন্তত ছয়জন নিহত এবং কয়েকশ মানুষ আহত হওয়ার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও নিন্দা জানিয়েছে টিআইবি।

রাজনৈতিক দোষারোপের ঘেরাটোপে আটকে এসব ঘটনার বিচার না হওয়ায়, নিয়মিত বিরতিতে এ ধরনের সহিংসতা ঘটছে বলে মনে করছে সংস্থাটি। তাই এই ধারাবাহিক সহিংসতাকে আর বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলার সুযোগ নেই।

বিবৃতিতে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, আমরা আশ্চর্য হয়ে লক্ষ্য করলাম, কুমিল্লার ঘটনাকে কেন্দ্র করে দেশব্যাপী সনাতন সম্প্রদায়ের মন্দির, বাড়িঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ জীবন-জীবিকার ওপর প্রায় সপ্তাহব্যাপী চলমান সাম্প্রদায়িক হামলা বন্ধে আইন-শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীসহ মাঠ প্রশাসন দুঃখজনক ব্যর্থতার পরিচয় দিলো। ঘটনা ঘটে যাওয়ার পর শতাধিক মামলায় কয়েক হাজার আসামি করা হলো, অথচ চিরাচরিত রাজনৈতিক দোষারোপের বাইরে এখন পর্যন্ত অধিকাংশ স্থানেই প্রকৃত অপরাধীদের চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি। এ ঘটনার পূর্ববর্তী সব সহিংসতাতেও আমরা একই দৃশ্যের পুনরাবৃত্তি দেখতে পাই। এতে প্রকৃত অপরাধীরা আড়ালে চলে যায় এবং নিয়মিত বিরতিতে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ঘটতেই থাকে।

তিনি বলেন, বিগত এক দশকে তিন হাজারেরও অধিক সহিংস হামলায় ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের দেড় হাজারেরও বেশি বাড়িঘর, পূজামণ্ডপ ও মন্দিরে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুরের একটি ঘটনাতেও আমরা দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির তথ্য পায়নি। সাম্প্রদায়িক শক্তির প্রতি রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতার পাশাপাশি বিচারহীনতার এই সংস্কৃতিই হামলাকারীদের আরও উস্কে দিচ্ছে এবং সাম্প্রদায়িকতার বীজ জিইয়ে রেখেছে। সাম্প্রদায়িক শক্তির প্রতি রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতা চিরতরে নির্মূল করে সহিংসতার জন্য দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে না পারলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশের স্বপ্নপূরণ অসম্ভবই রয়ে যাবে।

কুমিল্লার ঘটনার পরপর কারিগরি ত্রুটির কথা বলে ১২ ঘণ্টারও বেশি সময় মোবাইল ইন্টারনেট সেবা বন্ধ রেখে এবং মূলধারার গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচার না করে সহিংসতা রোধের প্রাগৈতিহাসিক ব্যর্থ প্রচেষ্টার সমালোচনা করে নির্বাহী পরিচালক বলেন, প্রকৃত ঘটনা আড়াল করে নয়, বরং দলমত নির্বিচারে তাৎক্ষণিকভাবে প্রকৃত অপরাধীকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনলে পরিস্থিতি এতদূর গড়াতো না বলেই আমরা বিশ্বাস করি। বিশেষ করে, সাম্প্রতিক অতীতে রামু, উখিয়া, নাসিরনগর, সুনামগঞ্জসহ বিভিন্ন স্থানে সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনায় ক্ষমতাসীনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের সম্পৃক্ততার তথ্য থেকে এই আশঙ্কা অমূলক নয় যে, প্রতিটি সহিংসতার পেছনেই কোনো না কোনো স্বার্থান্বেষী ও প্রভাবশালী মহলের যোগসাজশ আছে; ধর্মের মোড়কে যা ভয়ংকর আগ্রাসী হয়ে উঠছে। কিন্তু পর্দার পেছনের কুশীলবদের অদৃশ্য আঙ্গুলের ইশারায় তারা সবসময়ই ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যায়। এসব প্রভাবশালীদের সুরক্ষা দিতেই প্রকৃত অপরাধীদের চিহ্নিত করে শাস্তি নিশ্চিত করা হয় না-এমন সন্দেহ অলীক হবে না মন্তব্য করে তিনি আরো বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গঠনের সাংবিধানিক অধিকার বাস্তবায়নে অপরাধীকে সুরক্ষা প্রদান না করে প্রচলিত আইনে এধরণের ফৌজদারি অপরাধের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

২০০১ সালের নির্বাচনের অব্যাহতি পরে সংঘটিত সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনা তদন্তে ২০০৯ সালে হাইকোর্ট গঠিত শাহাবুদ্দিন কমিশন ২০১২ সালে বেশকিছু সুপারিশসহ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যে প্রতিবেদন জমা দিয়েছিল প্রায় এক দশক পরেও কেন তা প্রকাশ করা হলো না এমন প্রশ্ন করে ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, এই কমিশন প্রায় ১৮ হাজার সহিংসতার ঘটনার বিপরীতে জমা পড়া ৫ হাজার ৫৭৯টি অভিযোগের মধ্যে ৩ হাজার ৬২৫টি অভিযোগের তদন্ত করে ১ হাজার ৭৮ পৃষ্ঠার যে বিশাল প্রতিবেদন জমা দিলো আমরা এমনকি জানতেও পারলাম না যে, সেখানে কি সুপারিশ ছিলো! আমরা মনে করি, এ ধরনের প্রতিটি ঘটনাতে তদন্ত কমিটি গঠন এবং তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ না করার চর্চা বাদ দিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার মাধ্যমে আন্তরিকভাবে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা বন্ধ করার এখনই সময়।

টিআইবি সাম্প্রতিক ঘটনায় জড়িত সবার কঠোর ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির নিশ্চিতের পাশাপাশি দেশে ভবিষ্যতে যেন আর এমন জঘন্য অপরাধ সংঘটিত না হয় সেজন্য সুনির্দিষ্ট ও বাস্তবায়নযোগ্য কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নের দাবি জানায়।

খবরটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved dainikshokalerchattogram.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com