শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০৪:০১ অপরাহ্ন

শিক্ষা, শিক্ষক, প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষাউদ্যোক্তাদের বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

কাজী মো: সরোয়ার খান মনজু

শিক্ষামন্ত্রনালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী ও মন্ত্রী মহোদয় দিন শেষে শিক্ষা, শিক্ষক, প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষাউদ্যোক্তাদের বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

করোনা সংকটকালীন সময়ে দেশের অর্থনৈতিক সেক্টরকে সচল রাখতে সরকার প্রণোদনাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছেন। সিনেমা হল থেকে শুরু করে শিল্প প্রতিষ্ঠানকে নানা ভাবে সরকার সহযোগীতা করে আসছেন। অর্থনীতিকে সচল রাখার এ উদ্যোগের জন্য সরকার এবং উদ্যোগী মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রীগণকে সাধুবাদ ও আন্তরিক শুভেচ্ছা অভিনন্দন। যথা সময়ে যথা উদ্যোগের কারনে আজ অর্থনীতির চাকা সচল।

এ দেশের একটি মুল ও প্রধান সেক্টর সরকারের নজরের বাহিরে করোনা শুরু থেকে আজকের দিনটি পর্যন্ত। সে মন্ত্রনালয়ের একজন প্রতিমন্ত্রী, একজন উপমন্ত্রী একজন মন্ত্রী দায়িত্বে থাকা অবস্থায় কী সুযোগ সুবিধা পেল এবং কী কী উদ্যোগ গ্রহণ করলো অজনা রইল।
দেশের এমন কোন মিডিয়া নেই শিক্ষা সেক্টরের করুণ অবস্থা তুলে ধরে নিউজ করে নাই। প্রতিটি পত্রিকা, টেলিভিশন, অন লাইনে গুরুত্ব সহকারে প্রধান হেড লাইন করেছেন। এ জন্য সকল মিডিয়াকে সাধুবাদ ও আন্তরিক শুভেচ্ছা অভিনন্দন।
দফায় দফায় বন্ধের যাতনা সহে এত অবহেলার মধ্যেও স্বগেৌরবে এখনও শিক্ষা উদ্যোক্তাগণ নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানকে বাঁচিয়ে রেখেছেন। তারা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য সরকারের নিকট আর্থিক প্রণোদনার দাবী জানিয়ে আসছিল কিন্তু সে দাবী কোন মহলের নিকট পৌছাতে পারেনি। হয়তো সরকার বলবে যথাসময়ে শিক্ষক সমাজের বেতন ভাতা পরিশোধ করেছেন। এ কথা সত্য কিন্ত সরকারি শিক্ষক সমাজের বাহিরে বৃহত্তর বেসরকারি শিক্ষক সমাজের বেতন ভাতার কী খবর কেউ নিয়েছেন। আজ অনেক শিক্ষক পেশা পরিবর্তন করেছে কেন করলো এর উত্তর কী শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নিকট আছে? এ দায় কার হয়তো একদিন জাতীকে এ দায় বহন করতে হবে।

আজ শিক্ষার্থীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলার দাবীতে রাজপথে এ লজ্জা কার?
আসছে বাজেটে বিভিন্ন সেক্টর তাদের সুযোগ সুবিদার কথা অধিকারের কথা বলছেন এবং এর প্রতিফলনও ঘটবে।
শিক্ষা সেক্টরের কথা কে বলবেন? আমাদের প্রতিনিধি কে ? হাজার হাজার স্বউদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রায় মৃত্য অবস্থায় আছে। সে প্রতিষ্ঠানকে বাঁচিয়ে রাখতে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় আর্থিক প্রণোদনাসহ বিভিন্ন সুযোগ সুবিদায় পাওয়া এখন সময়ের দাবী।
দেশের চলমান লকডাউনে বারবার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের কারনে সমগ্র কিন্ডারগার্টেনের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীরা সরকারি কোন আর্থিক সহায়তা বা কোন ধরনের প্রণোদনা না পাওয়ায় নানাবিধ সমস্যার মধ্য দিয়ে অতিব কষ্টে দিন যাপন করে আসছেন।
আজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা যেমন জরুরী তেমনি সহজ শর্তে আর্থিক প্রণোদনা দিয়ে বাঁচিয়ে রাখাও জরুরী।
শিক্ষামন্ত্রনালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী ও মন্ত্রী মহোদয় দিন শেষে শিক্ষা, শিক্ষক, প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষাউদ্যোক্তাদের বাঁচাতে আসছে বাজেটে বিশেষ প্রণোদনার প্যাকেজ ঘোষনা উদ্যোগ গ্রহনে এগিয়ে আসুন।
কাজী মো: সরোয়ার খান মনজু
শিক্ষা উদ্যোক্তা

খবরটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved dainikshokalerchattogram.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com