শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ১০:১০ পূর্বাহ্ন

উত্তর পাঠানটুলীতে অস্ত্র কারখানার সন্ধান , আটক ১

চট্টগ্রামে অস্ত্র তৈরির কারখানার সন্ধান পেয়েছে পুলিশ, বৃহস্পতিবার ২৮ জানুয়ারী গভীর রাতে ডবলমুরিং থানাধীন ২৩ নং ওয়ার্ডের উত্তর পাঠানটুলীর বংশালপাড়ার একটি বাড়ির ছাদে এই কারখানার খোঁজ মেলে। এসময় দুইটি পাইপগান, একটি এয়ারগান, অস্ত্র তৈরির বিপুল সরঞ্জামসহ মেহেরুন্নেছা মুক্তা নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়। মূলত এই কারখানায় পাইপগানের মত অস্ত্র তৈরি করা হয়।
ডবলমুরিং থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন সাংবাদিকদের বলেন রাতে বংশালপাড়া এলাকায় একটি গুলির শব্দ শোনা যায়। সেই গুলির শব্দের উৎস খুঁজতে গিয়েই এই কারখানার সন্ধান মেলে। আমরা একজনকে গ্রেফতারে সমর্থ হলেও মূলহোতাসহ আরও দুইজন পলাতক রয়েছে। তাদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।’
এ ব্যাপারে ডবলমুরিং থানায় সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয় শুক্রবার ২৯ জানুয়ারী দুপুরে, এতে ব্রিফ করেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ উপ কমিশনার (পশ্চিম) ফারুক উল হক।
ডবলমুরিং থানা সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাত ১০ টার দিকে বংশালপাড়া এলাকায় একটি গুলির শব্দ শোনা যায়, সংবাদ পেয়ে ডবলমুরিং থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীনের নেতৃত্বে একটি টিম ঘটনাস্থলে যান। সেখানে প্রায় তিন ঘণ্টা অভিযানের পর গুলির শব্দের উৎস চিহ্নিত করতে সমর্থ হন পুলিশ সদস্যরা। পরে বংশাল পাড়া গফুর খান সওদাগরের সেই বাড়ির ছাদের একটি কক্ষে মেলে অস্ত্র তৈরির কারখানা। সরঞ্জামগুলো একটি কবুতরের বাসায় লুকানো ছিল, এই কারখানার মালিক মোহাম্মদ নিজাম খাঁন। ভোট নিয়ে কথা কাটাকাটির জেরে তিনিই শাহ আলম নামে এক ব্যক্তিকে গুলি করেন, কিন্তু গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে শাহ আলম বেঁচে যান, গুলির শব্দে চারিদিকে মানুষজন বের হলে নিজাম পালিয়ে যান। স্থানীয় ভাবে জানা যায় সরকার দলীয় মনোনীত চসিক ২৩ নং উত্তর পাঠানটুলী কাউন্সিলর প্রার্থী তথা নির্বাচিত কাউন্সিলর মোহাম্মদ জাবেদ এর অনুসারী, নিজাম এর এলাকায় ব্যাপক দাপট ও স্থানীয়দের আতংকের হেতু, সরকার দলীয় রাজনৈতিক প্রভাব ও অস্ত্রের ঝনঝনানিতে তার দিন ও রাত শেষ হয় ।
উদ্ধারকৃত অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে দুইটি পাইপগান, একটি এয়ারগান, ০১ টি ওয়েল্ডিং মেশিন, ০১ টি গ্রেডিং মেশিন, ০১ টি ওয়েল্ডিং হোল্ডার, ০১ টি আরথিং ক্যাবল,০১ টি বিদেশী কাটার, ০১ টি রিপিট গান মেশিন, ০৭ টি এসএস পাইপ, ০১ টি এসএস বক্স পাইপ, ০১ টি ষ্টিলের তৈরি দুইনলা ব্যারেল, ০১ টি প্লাষ্টিকের তৈরি সবুজ রংয়ের অস্ত্র সাদৃশ্য বস্তু, ০১ টি লোহার ছেনি,০১ টি কাঠের হাতলযুক্ত বাটাল, ০২ টি হাতুরী, ০১ টি স্প্রিং প্লায়াস, ০১ টি নোজ প্লাস, ০১ টি স্প্রিং তৈরির প্লায়াস, ০১ টি লোহার তৈরি পাইপ রেঞ্ছ, ১১ টি বিভিন্ন সাইজের লোহার পাইপ, ০১ টি ড্রিল মেশিন, ০১ টি ষ্টিলের গ্রিপ প্লায়াস,০২ টি করাত, ১৮ টি বিভিন্ন সাইজের স্প্রিং, ০২ টি সাদা রংয়ের কাগজের তৈরি আগ্নেয়াস্ত্রের নকশা, ০১ টি প্লাষ্টিকের বাটযুক্ত ছোড়া, এবং ০১ টি কাটি। মূলত এই কারখানায় পাইপগানের মত অস্ত্র তৈরি হত। এ ব্যাপারে ডবলমুরিং থানায় অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায় অভিযুক্ত নিজাম খান ভোটের ফলাফল নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে শাহ-আলম নামে এক ব্যক্তিকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে এ ঘটনার উৎপত্তি হয়। তবে গুলি লক্ষ্য ভ্রষ্ট হওয়ায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটে নি। ওসি জানান, যে অপরাধী যে হোক তাকে আইনের আওতায় আসতেই হবে, অন্যায় কারী যে দলই করুক না কেন আইনের চোখে সে অপরাধী।
অস্ত্র আইনে নিয়মিত মামলা করা হয়েছে, অভিযুক্ত নিজাম খান ঘটনার পর থেকে পলাতক।

খবরটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved dainikshokalerchattogram.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com