সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১১:৪৯ অপরাহ্ন

শিরোনাম
এই সরকার বাংলাদেশকে চরম অবক্ষয়ের দিকে নিয়ে যাচ্ছে – ডা. শাহাদাত এডিস মশার বংশ বিস্তার রোধে অভিযান ৪ ব্যক্তিকে ১৮ হাজার টাকা জরিমানা পরিকল্পিত আবাসন গড়ার মাধ্যমে নিরাপদ ও বাসযোগ্য নগরী গড়তে হবে দেশে ফিরলেন সিটি মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী জুলধা রোহান ডেইরী ফার্মের গরু বিক্রির ২লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করতেই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির নাটক ! সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলতে কন্যা শিশুদের যথাযথ নিরাপত্তা নিশ্চিত করা অপরিহার্য : প্রধানমন্ত্রী দেশে সাম্প্রাদায়িক সম্প্রতি বজায় রাখতে সরকার বদ্ধপরিকর : আইনমন্ত্রী দেশে ২৪ ঘন্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে দুইজনের মৃত্যু পূজায় জঙ্গি হামলার কোনো হুমকি নেই : র‌্যাব ডিজি সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে প্রতিহত করতে হবে : কৃষিমন্ত্রী

অ্যাপোলো শপিং সেন্টারের ছাদে এডিস মশার খামার!

নিজস্ব প্রতিবেদক :

এডিসের উৎস নির্মূল করতে না পারলে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে না

চট্টগ্রামের ডেঙ্গু রোগী বেড়ে যাওয়ায় চট্টগ্রামের মানুষ আতঙ্কিত, আর অ্যাপোলো শপিং সেন্টারের ছাদে সরেজমিনে গিয়ে দেখা হলো এডিস মশার চাষাবাদ ।

নগরীর কাজীর দেউড়িস্থ অ্যাপোলো শপিং সেন্টারের ছাদে বহুদিন থেকে পানি জমে কচুরিপানা জন্মেছে। মনে হচ্ছে এডিস মশা জন্মানোর তীর্থস্থান। অ্যাপোলো শপিং সেন্টারের মালিক-দোকানদার সমিতির কারো মাথা ব্যাথা নেই।

গত কিছুদিন থেকে চট্টগ্রামে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে।চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নাম মাত্রে পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালালেও এদিকে তাদের কোন নজর নেই। আশেপাশের ফ্ল্যাটের মালিকরা এডিস মশার ভয়ে আতংকিত । পাশে রয়েছে ভিআইপি টাওয়ার, সিডিএ এর বহুতল ফ্ল্যাট বাড়িসহ অনেক আবাসিক ভবন।

অ্যাপোলো শপিং সেন্টারের মালিক মোঃ ইসলাম সকালের চট্টগ্রামকে বলেন, আগামী কালের মধ্যে আমরা পরিষ্কার করে ফেলবো।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে সিডিএ বহুতল ভবনের ফ্ল্যাট মালিক সমিতির সভাপতি প্রকৌশলী আবু জাফর বলেন, আমরা আতংকের মধ্যে আছি, এডিস মশার আক্রমণের ভয়ে ।অ্যাপোলো শপিং সেন্টারের ছাদে বহুদিন থেকে জমে থাকা পানি থেকে এডিস মশার জন্ম হচ্ছে । পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে অ্যাপোলো শপিং সেন্টারের মালিক-দোকানদার সমিতির কোনো মাথা ব্যাথা নেই।

সমাজ কর্মী এম মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, বর্তমানে যে অবস্থা বিরাজ করছে তাতে আমাদের শহর তথা সারা বাংলাদেশের মানুষকে হতে হবে একেক জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী। উদ্বুদ্ধ করতে হবে একে অপরকে। লক্ষ্য করছি মশার ওষুধের জন্য আমরা অনেক বেশি উদগ্রীব হয়ে আছি। বিষয়টি যেনো এমন- ওষুধ এলেই সব মশা মেরে ডেঙ্গু নির্মূল করে ফেলবো। কিন্তু, বাস্তবতা ভিন্ন। ওষুধ হয়ত ২০ ভাগ মশা মারতে পারবে, কিন্তু, এর ব্যাপ্তি রয়েই যাবে। এডিসের উৎস নির্মূল করতে না পারলে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে না।

খবরটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved dainikshokalerchattogram.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com