মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১২:০৪ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
এই সরকার বাংলাদেশকে চরম অবক্ষয়ের দিকে নিয়ে যাচ্ছে – ডা. শাহাদাত এডিস মশার বংশ বিস্তার রোধে অভিযান ৪ ব্যক্তিকে ১৮ হাজার টাকা জরিমানা পরিকল্পিত আবাসন গড়ার মাধ্যমে নিরাপদ ও বাসযোগ্য নগরী গড়তে হবে দেশে ফিরলেন সিটি মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী জুলধা রোহান ডেইরী ফার্মের গরু বিক্রির ২লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করতেই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির নাটক ! সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলতে কন্যা শিশুদের যথাযথ নিরাপত্তা নিশ্চিত করা অপরিহার্য : প্রধানমন্ত্রী দেশে সাম্প্রাদায়িক সম্প্রতি বজায় রাখতে সরকার বদ্ধপরিকর : আইনমন্ত্রী দেশে ২৪ ঘন্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে দুইজনের মৃত্যু পূজায় জঙ্গি হামলার কোনো হুমকি নেই : র‌্যাব ডিজি সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে প্রতিহত করতে হবে : কৃষিমন্ত্রী

ভারত রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বড় ভূমিকা রাখতে পারে: প্রধানমন্ত্রী

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বাংলাদেশের জন্য ‘বড় বোঝা’ হিসেবে আখ্যায়িত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এই সঙ্কট সমাধানে বড় ভূমিকা রাখতে পারে ভারত।

চারদিনের সফরে ভারত যাওয়ার আগে দেশটির সংধ্যম এএনআইকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেছেন শেখ হাসিনা।

রোববার প্রকাশিত সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বাংলাদেশের ভূখণ্ডে কয়েক লাখ রোহিঙ্গার অবস্থান তার মেয়াদে বড় একটা চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তিনি বলেন, “আপনারা জানেন, এটা (রোহিঙ্গা) আমাদের জন্য বড় একটা বোঝা। ভারত অনেক বড় একটা দেশ, তারা সক্ষম হলেও খুব বেশি শরন্থী সেখানে নেই। কিআমাদের দেশে ১১ লাখ রোহিঙ্গা আছে। এজন্য আমরা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও প্রতিবেশীদের সঙ্গে আলোচনা করছি, রোহিঙ্গাদের দেশে ফেরানোর জন্য তাদেরও কিছু পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।”

মানবিক দিক বিবেচনায় তার সরকার এসব বাস্তুচ্যুত মানুষকে দেখভাল করার চেষ্টা করেছে বলে জানান শেখ হাসিনা।

“আমরা মানবিক দিক বিবেচনায় নিয়ে তাদের আশ্রয় দিয়েছি এবং তাদেরকে সবকিছু দিচ্ছি, কোভিড মহামারীর সময় আমরা পুরো রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠিকে টিকাও দিয়েছি। কিন্তু যে ক্যাম্পে তারা আছে, সেখানে তারা কতদিন থাকবে? সেখানে আমাদের পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে। এছাড়া কিছু লোক মাদক পাচার, অস্ত্র ব্যবসা, নারী পাচারের সাথে জড়িয়ে পড়েছে। দিন দিন এসেব বেড়েই চলেছে। তাই তারা যত তাড়াতাড়ি দেশে ফিরে যাবে ততই বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের জন্য মঙ্গলজনক। তাই আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমরা তাদের সঙ্গে এবং আসিয়ান বা ইউএনও-সহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গেও আলোচনা করছি,” বলেন তিনি।

রোহিঙ্গারা যখন সমস্যায় ছিল তখন তাদেরকে আশ্রয় দিকে বাংলাদেশকে অনুরাধ করা হয়েছিল জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, “কিন্তু এখন তাদের নিজ দেশে ফিরে যাওয়া উচিত। এক্ষেত্রে প্রতিবেশী দেশ হিসেবে ভারত বড় ভূমিকা রাখতে পারে বলে আমি মনে করি।”

সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে দুই দেশের মধ্যে অভিন্ন নদী, বিশেষ করে ঝুলে থাকা তিস্তার পানি বন্টন নিয়ে তার দেশের সহযোগিতার বিষয়ে জানতে হয়।

তিনি বলেন, এক্ষেত্রে অনেক চ্যালেঞ্জ থাকলেও পারষ্পরিক বোঝাপড়ার মাধ্যমে সবই সমাধান করা সম্ভব।

তিনি বলেন, “এটা খুবই দুঃখজনক… এটি ঝুলে আছে। আমাদের এখানে ভারত থেকে পানি আসে, তাই ভারতের আরও উদারতা দেখাতে হবে। এতে উভয় দেশই লাভবান হবে। কখনও কখনও পানির অভাবে আমাদের জনগণও অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বিশেষ করে তিস্তায় (পানি না পেয়ে) আমরা ফসল রোপণ করতে পারিনি এবং আরও অনেক সমস্যা দেখা দিয়েছে। তাই আমি মনে করি এর সমাধান হওয়া উচিত। অবশ্য, হ্যাঁ আমরা দেখেছি- প্রধানমন্ত্রী (মোদী) …আপনি জানেন… এই সমস্যা সমাধান করার জন্য অনেক আগ্রহী, কিন্তু সমস্যাটি আপনার দেশেই। তাই… আমরা আশা করি এটি হবে… এটি সমাধান করা উচিত।”

শেখ হাসিনা আরও বলেন, দুই দেশ গঙ্গা নদীর পানি ভাগ করে নিয়েছে।

“শুধু গঙ্গার পানিই আমরা ভাগাভাগি করেছি। এই পানির বিষয়ে আমরা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছি। কিন্তু আমাদের আরও ৫৪টি নদী আছে। হ্যাঁ… এটি একটি দীর্ঘস্থায়ী সমস্যা, তাই এটি সমাধান করা উচিত।”

খবরটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved dainikshokalerchattogram.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com