বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:০৬ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
শুভ জন্মদিন মানবিক বিশ্বনেত্রী শেখ হাসিনা নিবন্ধন পেল ইলেকশন মোনিটরিং ফোরাম গণতন্ত্র, অগ্রগতি, বিশ্ব নারী জাগরণের প্রতীক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা : তথ্যমন্ত্রী ৭৫’র পরবর্তী বাংলাদেশে সৎ, যোগ্য ও সাহসী নেতার নাম শেখ হাসিনা : ওবায়দুল কাদের শেখ হাসিনা শুধু দেশেই নন, বহির্বিশ্বেও অন্যতম সেরা রাষ্ট্রনায়ক : রাষ্ট্রপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন আগামীকাল বন্দরের শূন্যপদে করোনা ইউনিটের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের পূনবহালের দাবী দুই ব্যবসায়ীকে ৫মাসের কারাদন্ড ১ অক্টোবর থেকে ৫ দিন ব্যাপী দুর্গোৎসব উদযাপিত হবে বিদেশী পর্যটককে আকৃষ্ট করার মত পরিবেশ উপহার দিতে পারলেই দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করবে: ড. ইদ্রিস আলী

আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব শূন্য করতেই চার দলীয় জোট সরকারের নৃশংসতম গ্রেনেড হামলা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব শূন্য করতেই বিএনপি-জামায়াত তথা চার দলীয় জোট সরকার রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে নৃশংসতম এই গ্রেনেড হামলা চালায়। যারা গণতন্ত্রের কথা বলে, তাহলে এটা কিসের গণতন্ত্র। একটা প্রকাশ্য জনসভায় কীভাবে আর্জেস গ্রেনেড মারতে পারে?

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার সেই বিভিষিকাময় দিনের কথা স্মরণ করতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। আজ রোববার (২১ আগস্ট) আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এ দিন উপলক্ষে এক আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা অগ্নি সন্ত্রাস করে মানুষ হত্যা করেছে, যারা অপারেশন ক্লিনহার্টের মাধ্যমে আমাদের নেতাকর্মীদের অত্যাচার করে মেরেছে তারা আজকে বিদেশিদের কাছে গিয়ে কান্নাকাটি করছে। বিদেশিরা রিকোয়েস্ট করছে ওদেরকে একটু জায়গা দেয়া যায় কিনা। ওদেরকে জায়গা দেয়া যায় কিনা সে সিদ্ধান্ত নেবে জনগণ।

শেখ হাসিনা বলেন, নির্বাচন এলেই বিএনপির নানা ষড়যন্ত্র শুরু হয়। ২০০১ সালের কিছু সুশীল ও দুটি দেশের দূতাবাস কর্মীরা ষড়যন্ত্র করে আওয়ামী লীগকে হারিয়ে দিয়েছে। বেগম খালেদা জিয়া ক্ষমতায় আসে।

আওয়ামী লীগের সভানেত্রী বলেন, সারাদেশে নেতাকর্মীদের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন শুরু করলো। পাকিস্তানি সেনারা যেভাবে নির্যাতন করেছিল ঠিক সেভাবেই অত্যাচার-নির্যাতন শুরু হয়েছিল আমাদের নেতাকর্মীদের ওপর। একজন বিদেশি রাষ্ট্রদূতের ওপর ট্রেনে হামলা হলো। এটা কতটা ন্যক্করজনক একটি রাষ্ট্রের জন্য। আমরা এগুলো নিয়ে সমাবেশ করলাম।

শেখ হাসিনা বলেন, জাতীয় সংসদে এগুলো নিয়ে কথা বললাম। আমার মাইক বন্ধ করে দেয়া হলো। ওখানে বললো যে আমি নিজেই নিয়ে গেলাম। সমাবেশে হামলা হলো। খুনিদের সেই রাতে পাঠিয়ে দেয়া হলো। রাতারাতি সব আলামত নষ্ট করার চেষ্টা করা হলো। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়া এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে না। আজ গুম-খুনের কথা বলেন জিয়াউর রহমান এই গুম-খুন শুরু করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, বিএনপির আমলে লাশ টানা, বোমাবাজিতে আহত হওয়া- এটা ছিল আমাদের প্রতিদিনের কাজ। আজ নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার কথা বলেন- ২০০১ সালের নির্বাচন আমরা দেখেছি। ৯৬ সালে ক্ষমতায় এসেছিলাম যার কারণেই ২০০৪ সালে আমাকে শেষ করে দেয়ার পরিকল্পনা করেছে। ২১ আগস্ট হামলার সময় মেজর ডালিম ও রশিদ বাংলাদেশে ছিল। তারা যখন দেখলো আমি মরিনি তারা দেশ ছেড়ে চলে গেলো। সে সময় বেগম খালেদা জিয়ার বক্তব্যগুলো আপনারা খেয়াল করবেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি আমার বাবার পথ ধরেই এ দেশের মানুষের জন্য কাজ করছি। গ্রেনেড, বোমা, বুলেট দিয়ে বারবার হত্যাচেষ্টা হয়েছে। আল্লাহর রহমতে নেতাকর্মীরা আমাকে বাঁচিয়েছেন।

খবরটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved dainikshokalerchattogram.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com