মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০১:০১ অপরাহ্ন

শিরোনাম
বরখাস্ত পুলিশ পরিদর্শক সোহেল রানার অ্যাকাউন্টে সাড়ে ২৮ কোটি টাকা পণ্য ও সড়ক পরিবহন মালিক শ্রমিক সমন্বয় পরিষদের মতবিনিময় টুঙ্গিপাড়া থেকে ২ ঘণ্টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী বন্দরে এলো নতুন ২টি গ্যান্ট্রি ক্রেন, পূর্ণতা পেল এনসিটি কর্ণফুলী বঙ্গবন্ধু টানেল: সম্ভাবনার নতুন দুয়ার মধ্যরাতে প্রবাসীদের ভীড়:পদ্মা সেতু উচ্ছ্বাসের রঙ ছড়িয়েছে যুক্তরাজ্যেও মুক্তিযুদ্ধসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে যারা অবদান রেখেছেন তাদের স্মরণীয় করে রাখার উদ্যোগ নিয়েছে চসিক আওয়ামী লীগ নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে চায় : প্রধানমন্ত্রী বিদেশী রাষ্ট্রের সহযোগিতা পেলে পাচারকৃত অর্থ উদ্ধার করা সম্ভব : দুদক মহাপরিচালক রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে ঐকমত্য প্রতিষ্ঠায় ইসি চেষ্টা চালিয়ে যাবে : সিইসি

১২০ ভরি সোনা হয়ে গেলো মাদক, চাকরি হারালেন সেই এসপি

সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটার সোনা চোরাকারবারি বিপ্লব চ্যাটার্জির কাছ থেকে ১২০ ভরি সোনা উদ্ধারের পর সেগুলোকে মাদক উল্লেখ করে আত্মসাতের অভিযোগে জেলার সাবেক পুলিশ সুপার আলতাফ হোসেনকে চাকরি থেকে অপসারণ করা হয়েছে। তিনি সর্বশেষ ট্যুরিস্ট পুলিশ সিলেট জোনের এসপি হিসেবে কর্মরত ছিলেন। বুধবার (১৮ মে) রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আখতার হোসেন স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে তাকে চাকরিচ্যুত করা হয়।

এতে বলা হয়েছে, বিপ্লব চ্যাটার্জির কাছে থাকা ১২০ ভরি সোনা পাটকেলঘাটা থানা উদ্ধার করে তৎকালীন জেলা পুলিশ সুপার আলতাফ হোসেনকে জানায়। উক্ত ঘটনায় থানায় সোনা চোরাচালানের মামলা রেকর্ড না হয়ে মাদক মামলা রেকর্ড হয়। পুরো ঘটনাটিকে মাদক উদ্ধার বলে চালিয়ে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় সাতক্ষীরার তৎকালীন এসপির বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ২০১৯ সালের ৪ মার্চ পুলিশ সদর দফতরে প্রস্তাব দেওয়া হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৯ সালের ৯ জুলাই তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা ও কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়। একই বছরের ৪ আগস্ট অভিযোগের বিষয়ে ব্যাখ্যা দেন তিনি। ওই বছরের ২১ অক্টোবর তিনি ব্যক্তিগত শুনানিতে উপস্থিত হন।

শুনানিতে তার বক্তব্য যথাযথ মনে না হলে ২০২০ সালের ২৫ জুন পুলিশ সদর দফতরের অতিরিক্ত ডিআইজি মো. আতাউল কিবরিয়াকে বিভাগীয় মামলাটি তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দিতে বলা হয়। তদন্ত কর্মকর্তা আতাউল কিবরিয়া ২০২০ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর অভিযুক্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগসমূহ প্রমাণিত হয়েছে মর্মে মতামতসহ প্রতিবেদন জমা দেন। তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আলতাফ হোসেনকে একই বছরের ৩ নভেম্বর আরেকটি কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়। ২০২১ সালের ৫ জানুয়ারি তিনি নোটিশের জবাব দেন।

তার জবাব যথাযথ না হওয়ায় চলতি বছরের ৬ ফেব্রুয়ারি তাকে গুরুদণ্ড হিসেবে চাকরি থেকে অপসারণে সরকারি কর্ম কমিশনের কাছে প্রস্তাব করা হয়। কমিশন ৪ এপ্রিল প্রস্তাবিত দণ্ডের সঙ্গে একমত পোষণ করে রাষ্ট্রপতির নির্দেশের জন্য পাঠায়। অবশেষে রাষ্ট্রপতির নির্দেশক্রমে তাকে চাকরি থেকে অপসারণ করা হয়।

খবরটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved dainikshokalerchattogram.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com