শনিবার, ২১ মে ২০২২, ০২:২৪ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র ছাত্রীদের ঈদ আনন্দ মেলা সম্পন্ন বৈশ্বিক সংকট মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর ৪ প্রস্তাব ১২০ ভরি সোনা হয়ে গেলো মাদক, চাকরি হারালেন সেই এসপি আজ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এলামনাই এসোসিয়েশনের ঈদ আনন্দ উৎসব সকল ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে আওয়ামী লীগ বিজয়ের বন্দরে পৌঁছাবে : ওবায়দুল কাদের চট্টগ্রাম টেস্ট ড্র কিংবদন্তী সাংবাদিক আব্দুল গাফফার চৌধুরীর মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক প্রবীণ ভাষাসৈনিক আব্দুল গাফফার চৌধুরী লন্ডনে মারা গেছেন চসিক ভারপ্রাপ্ত মেয়র সাথে চীনের সিএনটি ওয়াই ও এলডিসি প্রতিনিধির সাক্ষাত চট্টগ্রামের ছেলে ইভান প্রথম আলো-মেরিল সেরা গায়ক বিভাগে চূড়ান্ত মনোনয়ন পেয়েছে

ফেসবুক সমাজসেবক এবং লোক দেখানো দান


মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী:
এক এক জন সামর্থ্যশালী ব্যক্তি যদি এক একজন করে দরিদ্র ব্যক্তির দায়িত্ব নেন বাংলাদেশ দারিদ্র্যমুক্ত হবে শীঘ্রই। আপনার যাকাতের টাকা দিয়ে আপনার নিকট আত্মীয় দরিদ্র একজন ব্যক্তি কে ব্যবসা বাণিজ্য করতে সহযোগিতা করলে হয়তো দেখা যাবে ওই ব্যক্তি সচ্ছল হয়ে আগামীতে যাকাত প্রদান করছে।

যাকাত দেওয়া, ইফতার সামগ্রী, ঈদ সামগ্রী বা কাউকে উপহার দেওয়া সওয়াবের তবে ইসলামিক নিয়ম মতে গোপনে দিতে হয়। ইদানিং আমরা দেখছি ইফতার সামগ্রী, সাহেরি ও ঈদ সামগ্রী কাউকে দিতে গেলে ফেসবুকে ছবি এবং ভিডিও এর মাধ্যমে মানুষকে দেখানোর প্রবণতা বেড়ে গেছে।এটা খুবই অশোভন।একজন মানুষকে আপনি সহযোগিতা করবেন আবার ফেসবুক বা প্রচার মাধ্যমে ছবি দিয়ে তাকে লজ্জিত করবেন তা মোটেই কাম্য নয়।

অনেককে দেখা যায় শতশত প্যাকেট মানুষকে খাদ্য সামগ্রী দিচ্ছেন কোন ক্যামেরা নেই। গতকাল চট্টগ্রামের এক কাউন্সিলের এলাকায় গিয়ে এলাকার মানুষের কাছে শুনলাম ওই কাউন্সিলর এবং তার লোকজন ওই এলাকার নিম্নমধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত ৪০০ পরিবারের ঘরের দরজায় গভীর রাতে খাদ্যসামগ্রীর প্যাকেট দিয়ে আসছেন। এক একটা প্যাকেট ৫ থেকে ৭ হাজার টাকার বাজার। উনার সংগ্রহের জন্য একটা ছবি দেখা গেল না।
আমি নিজেও চেষ্টা করি বিভিন্ন ব্যক্তি থেকে খাদ্য সামগ্রী সংগ্রহ করে নিম্নমধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবার গুলোতে দেওয়ার।
কয়েকটি সংগঠন কে প্রস্তাব দিয়েছিলেন আমাদের মাধ্যমে নিম্ন মধ্যবিত্ত ও দরিদ্র পরিবার গুলোেক ইফতার সামগ্রী এবং ঈদ সামগ্রী বিতরণ করতে,আমার শর্ত ছিল ছবি তোলা যাবে না। মহান সমাজসেবকরা রাজি হননি।ছবি তাদের লাগবে ভবিষ্যতে নিজের অবস্থান এবং সংগঠনের অবস্থানকে মজবুত করতে।
আমি নিজেও চেষ্টা করি বিভিন্ন ব্যক্তি থেকে খাদ্য সামগ্রী সংগ্রহ করে নিম্নমধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবার গুলোতে দেওয়ার।

আমাকে অনেক ব্যক্তি ব্যক্তিগতভাবে সহযোগিতা করেছেন এবং আমার সাথে গিয়ে নিজেরাও প্যাকেটগুলো বিভিন্ন মানুষের বাসার সামনে রেখে এসেছেন। তারাও ছবি তুলেননি। সত্যিকার অর্থে যারা দান করতে চান তারা লোক দেখানোতে বিশ্বাসী নয়, তারা গরিবদের সহযোগিতা এবং আল্লাহর সন্তুষ্টি কে গুরুত্ব দেন।
মোহাম্মদ নুর উদ্দিন নামে এক শিল্পপতি গতকাল ইন্তেকাল করেছেন। উনি চট্টগ্রামের মা ও শিশু হাসপাতালের উন্নয়নের জন্য কোটি কোটি টাকা দিয়েছেন গোপনে, উনার নামটা প্রকাশ করতে দেননি। গতকাল উনার মৃত্যুর পর মা ও শিশু হাসপাতালের এক কর্মকর্তা প্রকাশ করলেন তার নাম। দান এমনই হওয়া উচিত।মহান সৃষ্টিকর্তা সবাইকে হেদায়েত করবেন।

খবরটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved dainikshokalerchattogram.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com