বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৭:২১ পূর্বাহ্ন

ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দিপনার মধ্যেদিয়ে দ্বিতীয় ব্যাচের মডেল মেডিসিন শপ প্রশিক্ষণের সফল সমাপ্তি :রূহুল্লাহ সিদ্দিকী

ফার্মাসী কাউন্সিল অফ বাংলাদেশ (পি.সি.বি), ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর (ডিজিডিএ) এবং ম্যানেজমেন্ট সাইন্সেস ফর হেল্থ (এম.এস.এইচ) এর সার্বিক সহযোগীতায় চাঁদপুর জেলায় মডেল মেডিসিনশপ স্থাপন ও পরিচালনার উদ্দেশ্যে অনলাইন প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

এ কার্যক্রমের অংশ হিসেবে ১০ অক্টোবর, দ্বিতীয় ব্যাচের ১২ দিনের ট্রেনিং সফল ভাবে সমাপ্ত হয়েছে। উক্ত প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর অর্থায়ন করছে ব্রিটিশ সরকারের ফরেন, কমনওয়েলথ এন্ড ডেভেলপমেন্ট অফিস (এফসিডিও)।
চাঁদপুর জেলার ৩৫ জন গ্রেড সি-ফার্মেসী টেকনিশিয়ানের উপস্থিতিতে উক্ত প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের সঞ্চালনার দায়িত্ব পালন করছেন এম.এস.এইচ এর মো: রূহুল্লাহ সিদ্দিকী (বিএইচবি প্রকল্প)।

তার যোগ্য পরিচালনায় সকল ফার্মাসিস্টরা মুগ্ধ। গত বুধবার ট্রেনিং এর ১২ তম দিন শেষে সকল ফার্মাসিস্টরদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দিপনা দেখা গিয়েছে কারন ট্রেনিং এর বিষয়বস্তু, ডিজাইন এবং নতুন প্রযুক্তির ব্যাবহার নতুনত্ত্ব এনেছে। মো: রূহুল্লাহ সিদ্দিকীর স্বপ্ন এই ট্রেনিং প্রোগ্রামটি একটি মডেল ট্রেনিং হিসেবে বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠা করা। এবং এই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করার জন্য সকলের সার্বিক সহযোগীতা কামনা করছেন।

এই ট্রেনিং প্রগ্রামে উপস্থিত ছিলেন প্রজেক্ট টিম লিডার মো: নূরুজ্জামান (এম.এস.এইচ) এবং সম্মানিত রিসোর্স পার্সন হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন মো: সিরাজ উদ্দিন (ড্রাগ সুপার, সুনামগঞ্জ)। ১২ দিন প্রশিক্ষনে মূল আলোচ্য বিষয় ছিল, মডেল মেডিসিন শপ স্থাপন ও পরিচালনার জন্য কিছু আদর্শমান তৈরি হয়েছে। ওষুধ ডিসপেন্সারের ডিসপেন্সিং দক্ষতা, প্রাতিষ্ঠানিক যোগ্যতা, সেবা প্রদান পদ্ধতি, বিক্রয়কৃত ওষুধের ধরন এবং মডেল মেডিসিন শপের অবকাঠামো প্রতিটি বিষয়কে গুরুত্ব দিয়ে তৈরি করা হয়েছে ১১ টি আদর্শমান।

গুড ডিসপেন্সিং প্র্যাকটিস নিশ্চিতিকরণের মাধ্যমে করোনা মহামারি কালীন সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে ফার্মাসিষ্ট,ডিপ্লোমা,ফার্মাসিষ্ট.ফার্মেসি টেকনিশিয়ানদের ভূমিকা। ওষুধ সঠিকভাবে ডিসপেন্সিং অর্থ শুধুমাত্র রোগী বা গ্রাহককে ওষুধ দেয়া নয়। ওষুধ ডিসপেন্সিং মূলত স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের সর্বশেষ ধাপ যেখানে রোগী,গ্রাহক সেবাদানকারী ডিসপেন্সারের সাথে মূখোমুখি হন।

এখান থেকে একজন ডিসপেনসার সঠিক রোগীদের, সঠিক ওষুধ, সঠিক মাত্রায়, সঠিক পরিমাণে, সঠিক মোড়কে প্রদান করে। ডিসপেন্সিং এর উপর অনেকসময় রোগীর বা গ্রাহকের চিকিৎসার ফলাফল নির্ভর করে। অর্থাৎ রোগী ভাল হবে কিনা বা কত দ্রুত ভাল হবে তা সঠিক ডিসপেন্সিং এর উপর নির্ভর করে।

ট্রেনিং কার্যক্রমের ধারাবাহিক অংশহিসেবে তৃতীয় ব্যাচের প্রশিক্ষণ ৩৫ জন প্রশিক্ষনার্থীর উপস্থিতিতে ১৮ অক্টোবর সোমবার থেকে শুরু হয়ে ৩১ অক্টোবর ২০২১, রবিবার পর্যন্ত একটানা ১২ দিন (শুক্রবার ব্যাতিত) চলবে। প্রশিক্ষণ কার্যক্রম প্রতিদিন দুপুর আড়াইটা থেকে শুরু হয়ে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত চলবে।

খবরটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved dainikshokalerchattogram.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com