বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ০৮:০৩ অপরাহ্ন

শিরোনাম
৫০০ কর্মজীবী ও নির্মাণ শ্রমিকের মাঝে আ জ ম নাছিরের ত্রাণ সহায়তা ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ২৩৭ জনের মৃত্যু লকডাউনকালীন অসহায় শিশু ও গরীব দুঃস্থদের মাঝে চট্রগ্রাম নাগরিক ঐক্যর পক্ষ থেকে রান্না করা খাবার বিতরণ চট্টগ্রামে করোনা সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী, নিরবচ্ছিন্ন সেবা দিয়ে যাচ্ছে এশিয়ান স্পেশালাইজড হসপিটাল আগামী রবি ও বুধবার ব্যাংক বন্ধ আল্লামা মুফতি ইদ্রিছ রেজভীর ইন্তেকাল জাপা নেতা তপন চক্রবর্ত্তীর মৃত্যুতে উত্তর জেলা জাতীয় পার্টির শোক প্রকাশ চট্টগ্রামে ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত ১৩১০ জনের, মৃত্যু ১৮ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে অ্যামনেস্টির বক্তব্য উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অনিয়ম করলে ক্ষমা নেই, কঠোর শাস্তি: প্রধানমন্ত্রী

পূর্বপুরুষদের সম্মান ও ঐক্য রক্ষার্থে মোবারেক খীল জামে মসজিদে ঈদ জামাত পড়তে পারি

টরেন্টো থেকে মারুফ শাহ চৌধুরী

অন্তত আমাদের পূর্বপুরুষ মরহুম মোবারক খান যিনি গৌড় থেকে নদীপথে এসে আমাদের হালদা নদীর তীরে জনপদ বা বসতি স্থাপন করেছেন তার সম্মান ও ঐক্য রক্ষার্থে বাড়িতে বাড়িতে স্থাপিত ঈদের মসজিদে নামাজ না পড়ে আমরা আমাদের পূর্বপুরুষের মত আমাদের মোবারেক খীল জামে মসজিদে আমরা সবাই বছরে দুইবার ঈদের জামাত একত্রে পড়তে পারি যা পূর্বে আমাদের পিতা বা পিতা মহরা করে গেছেন। আমরা দেখেছি রাসতিয়া খান চৌধুরী বাড়ি থেকে আসত প্রাক্তন চেয়ারম্যান মরহুম আমানত খান দক্ষিণ দিকে তিনি তার নির্দিষ্ট জায়গায় জায়নামাজ নিয়ে বসতেন হাতে থাকতো তার আভিজাত্যের লাঠি। পাশে মজলিস খান । আলহাজ মাবুদ খান। খন্দকার মৌলভী বাড়ি থেকে মরহুম ফজলুল বারী তার পিতা এবং মরহুম ফজলুল করিম এবং তার পিতা এবং চেয়ারম্যান কামাল মিয়া প্রমূখ, মেহের আলী চৌধুরী বাড়ির গোলাপর রহমান খান লম্বা-চওড়া মানুষ মুখের হাসি একটি আভিজাত্যের প্রতীক। মাওলানা আবু ইউসুফ খান সুন্দর সুপুরুষ এবং কাজী বাড়িতে থেকে হাজী মুন্সি মূখলূখর রহমান মেহেদীর রঙে ভরা এক চাপ দাড়ি এবং শহীদ নাজিমুদ্দিনের পিতা নবাব মিয়াঁ এবং মাস্টার চৌধুরী বাড়িতে হতে আলহাজ্ব জবরুত খান। তাদের ছেলে এবং সলিমুল্লাহ খান বাহাদুর মোহাম্মদ ইব্রাহিম খান ও লম্বা-চওড়া মজলিশ খান প্রমূখ।আনোয়ার বলি বাড়িতে হতে ইঞ্জিনিয়ার আফজাল, বোরহানউদ্দিন।মরহুম মৌলানা মজিবউদ্দৌলা আরো অনেকেই সবাই আজ না ফেরার দেশে চলে গেছে। আশপাশে যে বাড়ি আছে তারা তো আসত তাই সেসব মুরব্বিদের নাম উল্লেখ করলাম না তাদের মধ্যে মরহুম আলী আকবর খানের বাবা ও চাচা দুই মুরুব্বি এবং আবদুস সবুর খান। আহমদুর রহমান সারেং এমনকি বকতিয়ার উকিল বাড়ি থেকে জনাব আব্দুল গফুর চৌধুরী, আব্দুর রহমান চৌধুরী এবং আহমদুর রহমান চৌধুরী তিনি এখনো বেঁচে আছেন জনাব নুরুছ ছাফা ও বাড়ির সবাই এই মোবারক খীল জামে মসজিদ এসে হাজির হত। ইমামদের মধ্যে আমি দেখেছি খন্দকার বাড়ি মাওলানা ইউনুস সাহেব তার ছেলে আব্দুল মান্নান। আমার প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষক মাওলানা আমির হোসেন এবং ঈদের নামাজে মসজিদ এবং হাফেজ সাহেবদের জন্য চাঁদা তোলা সেই এক সুন্দর দৃশ্য এবং মুরুব্বীদের হাসিখুশি মনোভাব পুরাতন বছরের সব জঞ্জাল যেন দূর করে দিতো এমনি শুধু আমাদের পরিবেশ যা শুধু কল্পনা।এই ছিল এক মিলন মেলা। আমার পিতা মরহুম মাওলানা শহীদ মনির আহমদ চৌধুরী এর আচকান পায়জামা গায়ে দিয়ে সুদৃশ্য জিন্না টুপি মাথায় দিয়ে দুই ঈদের খুতবার পূর্বে বয়ান করতেন এবং দুই ঈদের নামাজের নিয়ত সুপুরুষ মৌলানা মজিবুর দৌলা সাহেব দরাজ কণ্ঠে উচ্চারণ করবেন আমাদের সেটা এখনো মুখস্ত আছে। সবাই মিলে সম্মিলিতভাবে আমাদের পূর্বপুরুষেরা মোনাজাত আমার আব্বা সেই মোনাজাত পরিচালনা করতেন তারপর আমরা যার যার নিজস্ব পারিবারিক কবরস্থানে চলে যেতাম সেখানে জিয়ারত করে সবাই দ্বিতীয়বার কোলাকুলি করতাম। আজকে পাড়ায়-পাড়ায় মসজিদ হয়ে আমাদের পূর্বপুরুষের ঐতিহ্য এখন প্রায় হারিয়ে গেছে। অন্তত দুই ঈদের নামাজের জামাত নতুন প্রজন্ম যদি মোবারকের জামে মসজিদে প্রচলন করে তবে আমাদের হারানো গৌরব আমরা হয়তো ফিরে পেতে পারি এবং পরস্পর পরস্পরকে জানার অনেক সুযোগ হবে। দেশের সবাইকে সুদূর কানাডা থেকে ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা এবং এই করোনাকালীন সংকটময় মুহূর্তে আল্লাহ পাক যেন সবাইকে নিরাপদ রাখুন সেই কামনাই করছি। আমিন।

খবরটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved dainikshokalerchattogram.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com