বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ১২:৪৩ অপরাহ্ন

শিরোনাম
চুয়েটে আজ উদ্বোধন হচ্ছে দেশের প্রথম আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর আজ অধ্যাপক মোহাম্মদ খালেদ-এর জন্মশতবার্ষিকী বিএনপি’র আন্দোলনের হুমকি নিয়ে আমাদের মাথা ব্যথা নেই: ওবায়দুল কাদের চামড়ার মূল্য নির্ধারণ সব কারাগার ও থানায় বায়োমেট্রিক পদ্ধতি চালু করতে হাইকোর্টের রায় মক্কা নগরীতে হজ্জ মেডিকেল সেন্টার পরিদর্শন করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী সময়োপযোগী পরিবর্তনকে ধারণ করে পোশাক মালিকরা সমৃদ্ধ দেশ গঠনে অবদান রাখবে : স্পিকার অধিক ফসল উৎপাদন করার ও বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হবার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর জনগণের ভোটাধিকার রক্ষায় কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে আন্তর্জাতিক বৈজ্ঞানিক সম্মেলন ৭ জুলাই

৪ কোটি ৭৫ লক্ষ টাকা ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছেন এন হোসাইন এন্ড সন্স


মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী
রাজস্ব আয়ের সবচেয়ে বড় উৎস মূল্য সংযোজন কর খাতে ভ্যাট বা মূসক ফাঁকির পরিমাণ দিন দিন বাড়ছেই। ফাঁকির পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করতে ব্যর্থ হচ্ছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এ অবস্থায় চট্টগ্রামে ভ্যাট ফাঁকির বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান শুরু করছে ভ্যাট গোয়েন্দা বিভাগ। চট্টগ্রামের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ব্যাপারে গোয়েন্দা কার্যক্রম শুরু হয়েছে বলেও সূত্রটি নিশ্চিত করেছে। চট্টগ্রাম ভ্যাট কমিশনার এনামুল হকও বকেয়া ভ্যাট আদায়ের লক্ষ্যে বদ্ধ পরিকর বলে সকালের চট্টগ্রামকে জানিয়েছেন।
সকালের চট্টগ্রামের অনুসন্ধানে জানা যায়, চট্টগ্রামের শত শত প্রতিষ্ঠান ভ্যাট ফাঁকি দিয়ে ব্যবসা করে যাচ্ছে। চট্টগ্রামে কয়েক হাজার প্রতিষ্ঠান ভ্যাট নিবন্ধনের বাইরে রয়েছে। কয়েক হাজার ব্যবসায়ী শত শত কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকি দিচ্ছেন। নিবন্ধন করেও ভ্যাট দেন না অনেক ব্যবসায়ী। দিনের পর দিন তারা ভ্যাট ফাঁকি দিয়ে আসছেন। এ ধরনের একটি প্রতিষ্ঠান এন হোসাইন এন্ড সন্স। ব্যবহৃত এস্কেভেটর, ট্রেলার হুইল লোডার, ডাম্প ট্রাক, ক্রেন, লরি, প্রাইম মুভার, কার, বুলডোজারসহ বিভিন্ন ভারী যানবাহন ও যন্ত্রাংশ আমদানি করে প্রতিষ্ঠানটি। বহাল তবিয়তে ব্যবসা করে গেলেও ২০১৪-১৫ থেকে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে প্রতিষ্ঠানটি ৪ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে।
প্রতিষ্ঠানটির সত্ত্বাধিকারী নাজির হোসাইন ২০১৪-১৫ অর্থবছর থেকে ভ্যাট ফাঁকি দিয়ে আসছেন। ওই বছরে তিনি ৪৮ লক্ষ ১০ হাজার ৫৪৪ টাকার ভ্যাট ফাঁকি দেন। ১৫-১৬ অর্থবছরে ফাঁকি দেন ৯৮ লক্ষ ৫৭ হাজার ১৯ টাকা। ১৬-১৭ অর্থবছরে ১ কোটি ৮ লাখ ৩২ হাজার ৭৭৭ টাকা ভ্যাট ফাঁকি দেন। ১ কোটি ৬ লাখ ৪৩ হাজার ৩৪২ টাকা ভ্যাট ফাঁকি দেন ১৭-১৮ অর্থবছরে। সরকার তার কাছ থেকে ভ্যাট আদায় করতে না পারায় ১৮-১৯ অর্থবছরে আরো বেপরোয়া হয়ে ওঠে এন হোসাইন এন্ড সন্স। এ বছর প্রতিষ্ঠানটি ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে ১ কোটি ১৩ লক্ষ ৫৬ হাজার ৩৭১ টাকা।
এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে প্রতিষ্ঠানটির সত্ত্বাধিকারী নাজির হোসাইন বারবার ফোন রিসিভ করে রং নাম্বার বলে কেটে দেন।
এদিকে, চলতি ২০২০-২০২১ সালে এগার হাজার কোটি টাকা ভ্যাট আদায়ে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে মাঠে রয়েছে ভ্যাট বিভাগ। কিন্তু শত শত প্রতিষ্ঠানের ভ্যাট ফাঁকির মাঝে এ লক্ষ্যমাত্রা অর্জন নিয়ে সংশয় প্রকাশ করা হয়।
চট্টগ্রাম ভ্যাট কমিশনার এনামুল হক বলেন,বকেয়া ভ্যাট আদায়ে আমরা কাউকে কোন ধরনের ছাড় দেবো না ।

খবরটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved dainikshokalerchattogram.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com